গবেষণা/ ইন্টার্নশীপ

গ্লোবাল কমিউনিকেশন সেন্টার (জিসিসি) International Research Opportunity Program (IROP) এর মাধ্যমে সারা বিশ্বের তরুণ প্রজন্ম ও পেশাজীবীদের বাংলাদেশে গবেষণার সুযোগ দিচ্ছে। IROP সমাজের প্রত্যন্ত জনগোষ্ঠীর জীবনধারা নিয়ে একটি গবেষণাভিত্তিক কার্যক্রম। এই কার্যক্রমের আওতায় গবেষকগণ সামাজিক সমস্যাগুলো খুঁজে বের করে এবং বিভিন্ন প্রয়োজনীয় প্রযুক্তির সহায়তায় তার সম্ভাব্য সমাধান তৈরি করতে কাজ করে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে যেকোনো প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি জিসিসির প্রযুক্তিভিত্তিক সামাজিক উন্নয়নমূলক উদ্যোগগুলোর সাথে যুক্ত হয়ে একত্রীতভাবে কাজ করতে পারে। পাশাপাশি এর মাধ্যমে সামাজিক ব্যবসায়ে আগ্রহী প্রতিষ্ঠানসমূহ মাঠ-পর্যায়ে গিয়ে সামাজিক প্রয়োজনগুলোকে প্রত্যক্ষভাবে অনুভব করার সকল সুবিধা লাভ করে। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে শিক্ষার্থী, পেশাজীবী ও গবেষকদের জন্য গ্রামীণ পরিবারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণের নানামুখী সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। যে কেউ নিম্নোক্ত প্রোগ্রামগুলো থেকে উপযোগী প্রোগ্রামটি বেছে নিতে পারে।

 

 ১। International Research Opportunity Program (IROP)

 

ক। International Students’ Research Program (ISRP) (আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য গবেষণার সুযোগ)

 

এই প্রোগ্রামটি আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। ISRP তাদেরকে গ্রাম-বাংলাকে জানার ও এর সমস্যা ও সম্ভাবনাগুলো আরও কাছ থেকে দেখার সুযোগ দেয়। ৫-৬ দিনের মাঠ-পর্যায়ের কার্যক্রম গবেষক দলের সদস্যদের গ্রামবাসীর সাথে সরাসরি যোগাযোগ এবং ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি ও অভিজ্ঞতার আলোকে তাদের সমস্যাগুলোর সমাধান প্রদানের সুযোগ দেয়। প্রতি বছর ৬০ জনেরও বেশি শিক্ষার্থী এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করে। বিশ্বের বিভিন্ন স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বহু শিক্ষার্থী ইতোমধ্যে এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেছে যার মধ্যে কিয়ুশু ইউনিভার্সিটি, হিতোতসুবাশি ইউনিভার্সিটি ও টোকিও ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরাও রয়েছে।

 

কার্যক্রমের সম্ভাব্য সূচী
প্রথম দিন
  • জিসিসি আয়োজিত ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম ও পরিচিতি
  • নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বক্তৃতা ও সাক্ষাৎ*

 

দ্বিতীয় দিন গ্রামে যাত্রা
দ্বিতীয়-সপ্তম দিন
গ্রামে থাকা

কোনো নির্দিষ্ট ক্ষেত্রের সমস্যা নিয়ে গ্রামবাসীর সাথে কাজ করা

  • সাক্ষাৎকার/ জরিপ/ ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশন
  • স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিদের সাথে মিটিং
  • সম্ভাব্য সমাধান পরীক্ষণ
অষ্টম দিন ঢাকায় ফেরা
নবম দিন প্রেজেন্টেশন প্রোগ্রাম

  • গবেষণার অভিজ্ঞতা বর্ণনা
  • সম্ভাব্য সমাধান উপস্থাপন
  • প্রশ্নোত্তর ও অভিজ্ঞতা আদান-প্রদান
  • সনদপত্র বিতরণ

*সূচীর প্রাপ্যতার উপর নির্ভরশীল

    

গবেষণার স্থানসমূহ

গ্রামে গবেষণার জন্য তিনটি স্থান প্রস্তুত রয়েছে। গবেষণার স্থানসমূহে নিম্নোক্ত সুযোগ-সুবিধাগুলো নিশ্চিত করা হয়-

  • আবাসন বা গ্রামে থাকার ব্যবস্থা
  • নিরাপদ খাদ্য ও সুপেয় পানি
  • স্থানীয় পরিবহণ
  • দোভাষীর মাধ্যমে কথোপকথন [ইংরেজি – বাংলা (স্থানীয় কথ্যভাষা সহ)]
  • গ্রামবাসী ও অন্যান্য সম্পৃক্ত পক্ষের সাথে নির্বিঘ্ন যোগাযোগের ব্যবস্থা
  • সার্বিক নিরাপত্তা

 

আমাদের গবেষণার স্থানগুলো হল:

  • এখলাসপুর, চাঁদপুর
  • বসুন্দিয়া, যশোর
  • ভোমরাদহ, ঠাকুরগাঁও
isrp rch site

এখলাসপুর, চাঁদপুর: এটি মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত একটি জায়গা। এখলাসপুরে জেলে সম্প্রদায়ের জীবনধারা পর্যবেক্ষণ ও তাদের সাথে কথোপকথনের সুযোগ রয়েছে। এখানে যাওয়ার জন্য মেঘনা নদীর মধ্যে দিয়ে জলপথে যাত্রা একটি অন্যরকম অভিজ্ঞতা। সকল সুযোগ-সুবিধা সহ একেবারেই গ্রাম্য রীতিতে থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। থাকার জায়গার কাছেই রয়েছে ইউনিয়ন পরিষদ ভবন (স্থানীয় সরকার প্রতিনিধির কার্যালয়)। এখানে একটি নিকটবর্তী প্রাইমারী ও হাইস্কুলও আছে, অংশগ্রহণকারীরা সহজেই সেখানে গিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলতে পারে। ISRP প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারীরা সাধারণত স্থানীয় স্কুলগুলোতে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের সাথে আমাদের সহযোগিতামূলক সম্পর্ক থাকায় স্কুলে এধরনের কার্যক্রম খুব সহজেই সফলভাবে সম্পন্ন করা যায়।

বসুন্দিয়া, যশোর: যশোর এলাকা খেঁজুর-গুড় তৈরি এবং শাকসবজি ও ফুল চাষের জন্য বিখ্যাত। গ্রামের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য এটি একটি দারুণ জায়গা। বসুন্দিয়া ও এর আশেপাশের এলাকায় বেশ কয়েকটি স্কুল ও অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এখানকার থাকার জায়গাটি আধুনিক, আরামপ্রদ ও সামনে ফুলের বাগান থাকায় দৃষ্টিনন্দন।

ভোমরাদহ, ঠাকুরগাঁও: ঠাকুরগাঁও এখানে বসবাসকারী বিভিন্ন উপজাতি ও ধর্মের মানুষের জন্য সাংস্কৃতিকভাবে বৈচিত্র্যময়। এখানে থাকাকালে ভিন্ন ভিন্ন সাংস্কৃতিক চর্চা পর্যবেক্ষণের সুযোগ রয়েছে। এখানে খাওয়ার পানিতে আর্সেনিকের সমস্যা রয়েছে; পূর্ববর্তী ISRP দলগুলো আর্সেনিকের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরিতে কাজ করেছে। পাশাপাশি তারা গ্রামবাসীকে সহজে ও কম খরচে খাওয়ার পানিকে আর্সেনিক মুক্ত করার উপায় শেখায়।

 

এখলাসপুর, চাঁদপুর বসুন্দিয়া, যশোর ভোমরাদহ, ঠাকুরগাঁও

 

কারা অংশগ্রহণ করতে পারে
যেকোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্নাতক, স্নাতকোত্তর বা সমমানের পর্যায়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারে। প্রোগ্রামগুলোর সূচী শিক্ষার্থীদের গ্রীষ্মকালীন ও অন্যান্য  ছুটির সাথে সমন্বয় করে নির্ধারণ করা হয় যাতে শিক্ষার্থীরা তাদের পড়াশুনার কোনো ক্ষতি না করেও এতে অংশগ্রহণ করতে পারে।

কেমন ব্যয় হবে

শিক্ষার্থীরা দলগতভাবে প্রোগ্রামগুলোতে অংশগ্রহণ করে, তাই একটি দলের প্রত্যেককে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ পরিশোধ করতে হয়। জনপ্রতি ব্যয় আবাসন ব্যবস্থা, প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মোট সংখ্যা, প্রোগ্রামের দৈর্ঘ্য ও অন্যান্য বিষয়ের উপর নির্ভর করে। গত কয়েকটি প্রোগ্রামের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে জনপ্রতি ব্যয় ইউএস ডলার ৩২০ – ৪০০ হতে পারে।
 

কিভাবে আবেদন করতে হবে

আমাদের অমিত সম্ভাবনাময় গ্রামবাসীদের জানতে এবং গ্রাম বাংলার সমস্যা ও সম্ভাবনাগুলো বোঝার মাধ্যমে জ্ঞানের আদান-প্রদানে আগ্রহী যে কেউ এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারে। আগ্রহের বিষয়বস্তু উল্লেখ করে আমাদের ইমেইল করা যাবে এই ঠিকানায় info@gramweb.net.

 

খ। Business/ Market Research Program (ব্যবসায়িক/ বাজার গবেষণা)

 

এই প্রোগ্রামের অধীনে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও পেশাজীবী ব্যক্তিদের জন্য বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলোর বাজার সম্পর্কে গবেষণার সুযোগ তৈরি করে দেয়া হয়। এটি এমন একটি সেবা যা সম্পূর্ণভাবে আগ্রহী পক্ষের চাহিদা অনুসারে প্রদান করা হয়। কোনো স্বতন্ত্র পেশাজীবী, গবেষক বা নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি এই প্রোগ্রামে যোগদানের জন্য আবেদন করতে পারে। বিশ্বের বেশ কয়েকটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে আমাদের সাথে গবেষণার মাধ্যমে তাদের ভবিষ্যৎ বাজার সম্পর্কে জানতে এই সেবা গ্রহণ করেছে। নিসান মোটর কোঃ লিঃ (জাপান), টয়োটা মোটর কর্পোরেশন (জাপান), জাপান সরকারের ন্যাশনাল ইন্স্টিটিউট অফ ইনফর্মেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন্স টেকনোলজি (NICT) ও প্যানাসনিক কর্পোরেশন (জাপান) তাদের মধ্যে অন্যতম।
 

কার্যক্রমের সম্ভাব্য সূচী

প্রথম দিন
  • জিসিসি আয়োজিত ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম ও পরিচিতি
  • নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বক্তৃতা ও সাক্ষাৎ*
দ্বিতীয়-ষষ্ঠ দিন
  • বাংলাদেশে সম্ভাব্য সহযোগী প্রতিষ্ঠান বা অংশীদারদের সাথে সাক্ষাৎ
  • ঢাকার ভেতরে মাঠ-পর্যায়ে গবেষণা
    • সংশ্লিষ্ট স্থানসমূহ পরিদর্শন (কারখানা/ বাজার/ দোকান/ মেরামতখানা/ সেবাকেন্দ্র)
    • সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠীর মধ্যে জরিপ পরিচালনা
    • ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশন বা দলগত সাক্ষাৎকার
  • ঢাকার বাইরে মাঠ-পর্যায়ে গবেষণা
    • গ্রামবাসীর সাথে সরাসরি যোগাযোগ ও কথোপকথন
    • গ্রামের জনগোষ্ঠী ও জীবনধারা পর্যবেক্ষণ
    • প্রত্যাশিত অংশগ্রহণকারীদের নিয়ে সেমিনার বা কর্মশালার আয়োজন
    • একক সাক্ষাৎকার
    • ফোকাস গ্রুপ ডিসকাশন বা দলগত সাক্ষাৎকার
সপ্তম দিন
  • গবেষণার অভিজ্ঞতা বর্ণনা ও ফলাফলের সারসংক্ষেপ আলোচনা

*সূচীর প্রাপ্যতার উপর নির্ভরশীল

ফলোআপ সার্ভিস
এই প্রোগ্রামের প্যাকেজের সাথে ভ্রমণোত্তর অন্যান্য কিছু সেবাও প্রদান করা হয়:
  • সফরকারী দলের গবেষণা কার্যক্রমের উপর বিশ্লেষণমূলক রিপোর্ট
  • সফরকালের সকল কর্মকাণ্ডের উপর সংক্ষেপিত রিপোর্ট
  • সকল মিটিঙের প্রতিলিপি এবং সম্ভাব্য সহযোগী প্রতিষ্ঠান বা অংশীদারদের সাথে ফলোআপ

 

 গ। Social Business Exposure Program (সামাজিক ব্যবসায় সম্পর্কে জানার সুযোগ)
সারা বিশ্ব থেকে সকলের মধ্যে সামাজিক ব্যবসায় সম্পর্কে বিপুল আগ্রহের কথা বিবেচনা করে আমরা এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার সুযোগ তৈরি করেছি। সামাজিক ব্যবসায় হল পুঁজিবাদের একটি ভিন্ন ধারা যা সামাজিক উন্নয়নের জন্য নিবেদিত। এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারীরা বাংলাদেশের কিছু অগ্রগণ্য সামাজিক ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ও তাদের মাঠ-পর্যায়ের কার্যক্রম কাছ থেকে দেখার সুযোগ পায়। পাশাপাশি সামাজিক ব্যবসায়ের তাত্ত্বিক দিকগুলোও কর্মশালার মাধ্যমে দেখানো হয়। যেকোনো শাখার শিক্ষার্থী ও পেশাজীবীরা এই প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে পারে।
কার্যক্রমের সম্ভাব্য সূচী
প্রথম দিন
  • জিসিসি আয়োজিত পরিচিতি ও আলোচনা অনুষ্ঠান
  • ইউনূস সেন্টার আয়োজিত সামাজিক ব্যবসায়ের উপর কর্মশালা
  • ঢাকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আগ্রহের বিষয়ে সেমিনার বা মিটিঙে অংশগ্রহণ*
দ্বিতীয়-পঞ্চম দিন
  • সামাজিক ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানসমূহ পরিদর্শনের জন্য ঢাকার বাইরে গমন:
    • গ্রামীণ কৃষি ফাউন্ডেশন
    • গ্রামীণ মৎস্য ফাউন্ডেশন
    • গ্রামীণ হেলথকেয়ার সার্ভিস (চক্ষু হাসপাতাল)
    • গ্রামীণ ডানোন ফুডস্
    • গ্রামীণ শক্তি
    • গ্রামীণ কল্যাণ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র
    • গ্রামীণ ইউকুগুনি মাইতাকে লিঃ
    • গ্রামীণ ব্যাংকের ঋণ বিতরণ (MFI) কেন্দ্রের কার্যক্রম
    • গ্রামীণ ভিওলিয়া (খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ প্ল্যান্ট)
ষষ্ঠ দিন
  • ঢাকায় ফেরা
  • ইউনূস সেন্টার পরিদর্শন এবং নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সাথে সাক্ষাৎ*
  • পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা পরিদর্শন

*সূচীর প্রাপ্যতার উপর নির্ভরশীল

    
২। ইন্টার্নশীপ
 

যেকোনো শাখার শিক্ষার্থী ও পেশাজীবীরা জিসিসিতে ইন্টার্নশীপ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করতে পারে। শিক্ষানবীশরা জিসিসির আইসিটি ভিত্তিক গবেষণা অথবা ব্যবসায়িক মডেল তৈরি ও বাজার গবেষণা বিষয়ে কাজ করার সুযোগ পেয়ে থাকে। তারা কাজ করার জন্য তাদের পছন্দ অনুযায়ী জিসিসির যেকোনো প্রকল্প বাছাই করতে পারে। প্রোজেক্টসমূহের লক্ষ্যের সাথে সামঞ্জস্যতা সাপেক্ষে শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অথবা নিজস্ব আগ্রহ থেকে কোন নির্ধারিত কাজ সম্পন্ন করার প্রয়োজন থাকলে সেগুলোও বিবেচনা করা হয়।

 

ক। স্বল্পমেয়াদী ইন্টার্নশীপ
একজন আবেদনকারী স্বল্পমেয়াদী ইন্টার্নশীপের জন্য আবেদন করতে পারে যা সাধারণত দুই থেকে চার সপ্তাহের হয়ে থাকে। শিক্ষানবীশকালীন সময়ের মধ্যে মাঠ-পর্যায়ের কোনো কার্যক্রম থাকলে ইন্টার্নদের সেখানে অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হয়।

 

খ। দীর্ঘমেয়াদী ইন্টার্নশীপ

দীর্ঘমেয়াদী ইন্টার্নশীপের ব্যাপ্তি এক মাস থেকে এক বছর পর্যন্ত হতে পারে। অংশগ্রহণকারীর আগ্রহের ভিত্তিতে তা আরও বর্ধিত করা যেতে পারে। যেহেতু সারা বছরই মাঠ-পর্যায়ে নানা কার্যক্রম চলে, দীর্ঘমেয়াদে ইন্টার্নশীপে অংশগ্রহণকারীরা এসব কার্যক্রমে অংশ নেয়ার ও গ্রামাঞ্চলে গবেষণার বৃহত্তর সুযোগ পেয়ে থাকে। 

শিক্ষানবীশ থাকাকালীন আহার, বাসস্থান ও অন্যান্য ব্যক্তিগত খরচ শিক্ষানবীশদের নিজ দায়িত্বে বহন করতে হবে। তবে আমরা গ্রামীণ অফিসের কাছাকাছি এলাকায় হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করার ক্ষেত্রে সাহায্য করে থাকি, এক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান হিসেবে শিক্ষানবীশ ও অন্যান্য অতিথিদের জন্য নির্ধারিত স্বল্প হারে থাকার ব্যবস্থা করা হয়।

কিভাবে আবেদন করতে হবে

ইন্টার্নশীপ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষানবীশরা জিসিসির কর্মকাণ্ডে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। পাশাপাশি এটি শিক্ষানবীশদের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক পরিচিতি লাভের একটি ভাল সুযোগ। জিসিসির প্রোজেক্টগুলোর সাথে সামঞ্জস্য রেখে আগ্রহের বিষয়বস্তু উল্লেখ করে আমাদের ইমেইল করা যাবে এই ঠিকানায় info@gramweb.net

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য
  • তৃণমূল পর্যায় থেকে সামাজিক সমস্যাগুলো তুলে এনে তাকে সামাজিক ব্যবসায়ে রূপান্তরের সুযোগ তৈরি করা
  • গ্রামবাসীদের তাদের সমস্যা থেকে উত্তরণের পন্থা তৈরিতে সহায়তা করা
  • গ্রামবাসীদের চাহিদা, সম্ভাবনা ও তা অর্জনে প্রয়োজনীয় সামাজিক দায়িত্বগুলো তুলে ধরা
কাজের পরিধি
  • বাংলাদেশের গ্রাম এলাকায় থেকে এখানকার আর্থ-সামাজিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনা
  • গ্রামবাসীদের সাথে সরাসরি কাজ করে তাদের জীবনধারা, প্রয়োজন ও সমস্যা  সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ
  • সমস্যাগুলোর সমাধান বের করার জন্য প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা
  • সম্ভাব্য সমাধান থেকে আর্থিকভাবে স্বয়ংসম্পূর্ণ ব্যবসায়িক মডেল গঠন

অনুসন্ধান

রিপোর্ট / ভিডিও

ভোট

How often do you take a basic health check up?

View Results

Loading ... Loading ...